খুলনা বিভাগনির্বাচনসারাবাংলা

রাতপোহালে সোমবার খুলনার চালনা পৌরসভা নির্বাচন

খুলনা প্রতিনিধি: আগামীকাল দেশের ২৪টি পৌরসভায় প্রথম দফায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সকাল আটটায় ভোট গ্রহণ শুরু হবে এবং কোন বিরতি ছাড়াই বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।

খুলনা বিভাগের ৩ টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পৌরসভাগুলোর মধ্যে রয়েছে, খুলনার চালনা, কুষ্টিয়ার খোকসা ও চুয়াডাঙ্গা। এসব পৌরসভার ভোটকেন্দ্রে ইবিএম এর মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনার চালনা পৌরসভায় নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর ২৭ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। এ পৌরসভায় মোট ১২ হাজার ১শো ভোটারের মধ্যে ৫ হাজার ৮শো ৬৩ জন পুরুষ ও ৬ হাজার ২শো ৩৭ জন মহিলা ভোটার এবার প্রথম ইবিএম এর মাধ্যমে ভোট প্রদান করবেন।

সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে চালনা পৌরসভায় ৯টি ভোটকেন্দ্রে ৪৩টি কক্ষ খোলা হবে। নির্বাচন পরিচালনার জন্য এ পৌরসভায় ৯ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৪৩ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং ৮৬ জন পুলিং অফিসার দায়িক্ত পালন করবেন।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভায় নির্বাচনে মেয়র পদে ৭ জন, সাধারণ কাউন্সিলর ৫৬ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৩ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। এ পৌরসভায় মোট ৬৭ হাজার ৮শো ৮জন ভোটারের মধ্যে ৩২ হাজার ৮শো ১৮ জন পুরুষ ও ৩৪ হাজার ৯শো ৯০ জন মহিলা ভোটাধিকার প্রদান করবে।

সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে এ পৌরসভায় ৩৩টি ভোটকেন্দ্রে ১শো ৯৭ টি কক্ষ খোলা হবে। নির্বাচন পরিচালনার জন্য এ পৌরসভায় ৩৩ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ১৯৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং ৩শো ৯৪ জন পুলিং অফিসার দায়িক্ত পালন করবেন।

এছাড়া, কুষ্টিয়ার খোকসা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ২ জন, সাধারণ কাউন্সিলর ৩১ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। এ পৌরসভায় মোট ১৪ হাজার ৯শো ৪০ জন ভোটারের মধ্যে ৭ হাজার ৪শো ৪১ জন পুরুষ ও ৭ হাজার ৪শো ৯৮ জন মহিলা ভোটার রয়েছে।

অবাধ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পুর্ন হয়েছে।সরকার ভোটারদের ভোটদানের সুবিধার্থে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী পৌরএলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে।

রিটার্নিং অফিসারদের কাছে ইতোমধ্যে ব্যালট পেপার ও ব্যালট বাক্স পাঠানো হয়েছে। নির্বাচনী এলাকায় গত মধ্যরাত থেকে আগামি মঙ্গলবার মধ্যরাত পর্যন্ত আইন শৃঙ্খল বজায় রাখার জন্য পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যদের পাশাপাশি বিজিবি সদস্য মোতায়ন করা হয়েছে। সকল ভোটকেন্দ্রে নিরাপত্তার জন্য পুলিশ ও আনসার সদস্যরা সার্বক্ষণিক দায়িক্ত পালন করবে।

এদিকে, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন আজ মধ্যরাত থেকে সকল প্রকার মটোরযান চলাচলের উপর নির্বাচনী এলাকায় নিশেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। তবে রিটার্নিং অফিসারের অনুমিত সাপেক্ষে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থী ও তাদের এজেন্ট, দেশি বিদেশি পর্যাটক, সাংবাদিকসহ সেবাদানে ব্যাবহারিত বিদ্যুৎ, ঔষধ, এ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসের মটোরযান ও রিক্সা ভ্যান এ নিশেধাজ্ঞার আওত্বামুক্ত থাকবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
%d bloggers like this: