স্বাস্থ্য

বার্ড ফ্লু’র সময় মাংস-ডিম খাওয়া নিয়ে যা বলছে ডব্লিউএইচও

স্বাস্থ্য ডেস্ক:একদিকে করোনার প্রকোপ, অন্যদিকে নতুন আতঙ্ক ‘বার্ড ফ্লু’। ভারতের রাজস্থান, হিমাচল প্রদেশ, কেরালা, মধ্যপ্রদেশে শত শত কবুতর, কাক, হাঁস, মুরগির মৃত্যু হচ্ছে।

জানা গেছে, মৃত পাখিদের শরীরে এইচ৫এন১ ভাইরাস মিলেছে। দেশটির একাধিক রাজ্যে পাখিদের ক্রমবর্ধমান মৃত্যুর সংখ্যা দেশব্যাপী মানুষকে আতঙ্কিত করে তুলছে। কেন্দ্র ইতোমধ্যেই রেড অ্যালার্ট জারি করেছে। সরকার এই রোগের বিস্তার ঠেকাতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে।
চিকিৎসকদের মতে, বার্ড ফ্লু H5N1 ভাইরাসজনিত কারণে হয়। বার্ড ফ্লু যখন মানুষের মধ্যে প্রবেশ করে তখন তা মারাত্মক হতে পারে। এই ভাইরাস মানুষের জন্যও প্রাণঘাতী হতে পারে। এ পরিস্থিতিতে প্রত্যেকের মনেই প্রশ্ন জাগছে, তাহলে কি মুরগির মাংস আর ডিম খাওয়া বন্ধ?
অনেক মানুষ ইতোমধ্যেই ভয়ে মাংস আর ডিম খাওয়া প্রায় বন্ধ করে দিয়েছেন। বিভিন্ন জায়গায় এই সমস্ত জিনিসের দামও কমেছে। এনিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) কিছু পরামর্শ দিয়েছে। তাহলে দেখে নিন হু কী বলছে –
ক) কাটা মুরগি না কেনাই ভাল।
খ) মাংস রান্নার আগে অবশ্যই ভালো করে ধুয়ে নিন।
গ) কাঁচা, আধ সিদ্ধ ডিম খাওয়া যাবে না।
ঘ) কাঁচা মাংস যে পাত্রে রাখবেন, সেই পাত্রে অন্যকিছু বা রান্না করা মাংস রাখবেন না।
ঙ) যে ছুরি বা বটি দিয়ে মাংস কাটবেন, সেই ছুরি দিয়ে সবজি বা অন্য কিছু কাটবেন না।
চ) কাঁচা মাংস বা ডিম যাতে তৈরি করা খাবারের সংস্পর্শে না আসে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে, নাহলে সংক্রমণের ভয় থেকে যাবে।
ছ) হাত ভাল করে ধুতে হবে। ডিমে হাত দেওয়ার পর ভাল করে হাত ধুয়ে নিন।
জ) হাঁস-মুরগির মাংস বা ডিম ভালভাবে রান্না করে খেলে কোনও সমস্যা নেই। তবে রান্নার সময় তাপমাত্রা যেন অবশ্যই ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার বেশি থাকে। সেক্ষেত্রে ভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে না।
ঝ) পোলট্রিজাত পাখি হাতে নেওয়ার পর অন্তত ২০ সেকেন্ড গরম পানিতে হাত ধুয়ে তবেই রান্না করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা৷
ঞ) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী, পোলট্রিজাত খাবার ভাল করে রান্না করে খেলে, বার্ড ফ্লু সংক্রমণের কোনও ভয় নেই! তবে অবশ্যই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে।
সূত্র: বোল্ড স্কাই।
আপনার মন্তব্য লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
%d bloggers like this: