খেলাধুলা

ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মুখোমুখি আবাহনী-বসুন্ধরা কিংস

স্পোর্টস ডেস্ক:মৌসুমের সবচেয়ে বড় ম্যাচের অপেক্ষায় ফুটবল পাড়া। ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ঢাকা আবাহনী এবং বসুন্ধরা কিংস। বিদেশীরা আশানুরূপ পারফরম্যান্স না করলেও, দলীয় ঐকতানে জিততে মরিয়া আকাশী-নীলরা। অন্যদিকে, ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের সম্মিলনে শিরোপায় চোখ কিংসের। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বিকেল ৪টায়।

ফাইনালের আগে ফাইনাল। ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে বঙ্গবন্ধুতে লড়বে দুই হেভিওয়েট ক্লাব। একদিকে আকাশী নীল জার্সিতে বাংলাদেশ ফুটবলের ঐতিহ্যের ধারক আবাহনী, অন্যদিকে কর্পোরেট অর্থের ঝনঝনানিতে মুখর বসুন্ধরা কিংস।
শেষ মুহূর্তের অনুশীলনে ব্যস্ত দু’দল। ধানমণ্ডিতে নিজেদের গ্রাউন্ডে গা গরম করেছে আবাহনী। বোর্ডে ছক কেটে লাল শিবির দখলের উপায় বাতলে দিয়েছেন ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু। মনোযোগী ছাত্র হিসেবে পুরোটা সময় তা আয়ত্ব করেছেন রাফায়েল এবং তোরেস। আর দেশীদের নিয়ে বিখ্যাত সেট পিসের মহড়া দিয়েছেন আবাহনী কোচ মারিও লেমোস। ইনজুরি সমস্যা না থাকলেও, ফেড কাপে আবাহনীর দুই তুরূপের তাস রায়হান এবং সাইঘানি ছিলেন না বিকেলের সেশনে। বড় ম্যাচের আগে শিষ্যদের বিশ্রাম দিয়েছেন পর্তুগীজ কোচ।
মারিও লেমোস বলেন, এটা বিগ ম্যাচ। জেতার কোন বিকল্প নেই। ছেলেরা পুরোপুরি প্রস্তুত আছে। সাইঘানির একটু ঠান্ডা লেগেছে। আর রায়হানকে নিয়ে আমি ঝুঁকি নিতে চাইনা। তাই তাদেরকে আজ বিশ্রামে রেখেছি। তবে, ম্যাচে তারা শুরু থেকেই থাকবে। কিংস প্রতিপক্ষ হিসেবে খুবই কঠিন। তবে, ম্যাচের দিনে ভালো খেলার ওপর নির্ভর করছে সবকিছু।
উত্তাপ, উত্তেজনা কম ছিল না বসুন্ধরাতেও। নিজেদের মধ্যে ম্যাচ খেলে আবাহনীর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে তারা। গ্রুপপর্বে কঠিন প্রতিপক্ষ সামলানোর অভিজ্ঞতা থাকায়, চাপ নেই কিংস শিবিরে। বরং শিরোপা ধরে রাখার মিশনে ফাইনালে চোখ স্প্যানিশ কোচের।
বসুন্ধরা কিংসের কোচ অস্কার ব্রুজন বলেন, গ্রুপে আমরা অনেক কঠিন ম্যাচ খেলেছি। যে কারণে, ছেলেদের চাপ সামলানোর অভিজ্ঞতা হয়ে গেছে। তবে, আবাহনী ম্যাচটা আলাদা। এখানে জিততেই হবে। তাদের বিপক্ষে ভালো ফল করলেই, বোঝা যাবে আপনি আসলে লিগের জন্য কতটা প্রস্তুত।
হাই-ভোল্টেজ ম্যাচটা জিততে হলে দু-একজন নয়, পারফর্ম করতে হবে পুরো দলকে। আবাহনীতে ৫ জনের সঙ্গে, কিংসে আছেন জাতীয় দলের ১২ জন। তাদের ওপর নজর থাকলেও, বিদেশীরাই গড়ে দেবেন পার্থক্য, মনে করেন সিনিয়র ক্যাম্পেইনাররা।
আবাহনীর অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার মামুনুল বলেন, বিদেশীরাই দু’দলের মূল শক্তি। তারা এখনো আপ টু দ্য মার্ক পারফরম্যান্স দেখাতে পারে নি। তবে, সময়ের সঙ্গে তাদের ধার বেড়েছে। আশা করি এ ম্যাচ দিয়েই সবাই ঘুরে দাঁড়াবে।
বসুন্ধরা কিংসের ডিফেন্ডার তপু বর্মণ বলেন, দু’দলেই জাতীয় দলের প্রচুর খেলোয়াড় আছে। তাদের সবারই বড় ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। দুর্দান্ত একটা ম্যাচের অপেক্ষা করছি।
মুখোমুখি দেখায় এগিয়ে নেই কোন দলই। সমান একবার করে জয়-পরাজয় আর ড্র আছে আবাহনী-বসুন্ধরার। তবে, ফেডারেশন কাপের শেষ দেখাতে জয়ী দল ঢাকা আবাহনী।
আপনার মন্তব্য লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
%d bloggers like this: